Bangla Runner

ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২০ জুন, ২০২৪ | বাংলা

শিরোনাম

রম্য বিতর্ক: ‘কুরবানীতে ভাই আমি ছাড়া উপায় নাই!’ সনাতনী বিতর্কের নিয়মকানুন গ্রীষ্ম, বর্ষা না বসন্ত কোন ঋতু সেরা?  বিভিন্ন পত্রিকায় লেখা পাঠানোর ই-মেইল বিশ্বের সবচেয়ে দামি ৫ মসলা Important Quotations from Different Disciplines স্যার এ এফ রহমান: এক মহান শিক্ষকের গল্প ছয় সন্তানকে উচ্চ শিক্ষত করে সফল জননী নাজমা খানম ‘সুলতানার স্বপ্ন’ সাহিত্যকর্মটি কি নারীবাদী রচনা? কম্পিউটারের কিছু শর্টকাট
Home / অর্থ-বাণিজ্য

সরবরাহ সংকটে মালয়েশিয়ায় ঊর্ধ্বমুখী পাম অয়েলের দাম

রানার ডেস্ক
শনিবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০২৩ Print


87K

ফিউচার মার্কেটে গতকাল মালয়েশিয়ান পাম অয়েলের দাম বেড়েছে। শুষ্ক আবহাওয়ায় পাম অয়েল রফতানিকারক দেশগুলোয় চলতি মাসে উৎপাদন কমার আশঙ্কা রয়েছে। এছাড়া শীর্ষস্থানীয় সরবরাহকারী দেশগুলোয় মজুদ কমে আসার বিষয়টিও মূল্যবৃদ্ধিতে ভূমিকা রেখেছে। খবর বিজনেস রেকর্ডার।

বুরসা মালয়েশিয়া ডেরিভেটিভস এক্সেচেঞ্জে ফেব্রুয়ারিতে সরবরাহ চুক্তিতে গতকাল পাম অয়েলের দাম বেড়েছে ১০ রিঙ্গিত বা দশমিক ২৭ শতাংশ। প্রতি টনের দাম উঠেছে ৩ হাজার ৬৯৮ রিঙ্গিত বা ৭৯২ ডলার ৭১ সেন্টে।

মুম্বাইভিত্তিক উদ্ভিজ্জ তেলের ব্রোকার সানভিন গ্রুপের গবেষণা প্রধান অনিলকুমার বাগানি বলেন, ‘মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়া উভয় দেশেই প্রত্যাশার চেয়ে বেশি উৎপাদন কমেছে। এ কারণে বাজারে দাম বেড়েছে।’

মালয়েশিয়ার পাম অয়েল খাতসংশ্লিষ্ট তথ্য বলছে, রফতানির তুলনায় উৎপাদন কমেছে মালয়েশিয়ায়। নভেম্বরের শেষে পাম অয়েলের মজুদ সাত মাসের মধ্যে প্রথমবারের মতো কমেছে।

বিশ্বের শীর্ষ পাম অয়েল উৎপাদনকারী দেশ ইন্দোনেশিয়ার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘‌ইন্দোনেশিয়া ডিসেম্বরের দ্বিতীয়ার্ধের (১৬-৩১) জন্য অপরিশোধিত পাম অয়েলের (সিপিও) রেফারেন্স মূল্য টনপ্রতি ৭৬৭ ডলার ৫১ সেন্ট নির্ধারণ করার পরিকল্পনা করছে। মাসের প্রথমার্ধে যা ছিল ৭৯৫ ডলার ১৪ সেন্ট।’

এদিকে প্রতি বছরই শীতে পাম অয়েলের চাহিদা কিছুটা কমে যায়। মূলত শীতে জমে যাওয়ায় ভোক্তারা পাম অয়েল ব্যবহার করতে অসুবিধার মুখে পড়েন। এ কারণে শীত মৌসুমে পাম অয়েলের বিকল্প উদ্ভিজ্জ তেলগুলোর চাহিদা কিছুটা বেড়ে যায়। তবে এ বছর চাহিদা কমার তুলনায় পাম অয়েলের সরবরাহ কমে হার বেশি থাকায় পণ্যটির দাম বেড়েছে। 

তাছাড়া গতকাল যুক্তরাষ্ট্রের ফিউচার মার্কেট শিকাগো বোর্ড অব ট্রেডে (সিবিওটি) সয়াবিনের মূল্য দশমিক ৫৬ শতাংশ বেড়েছে। সয়াবিনের অব্যাহত মূল্যবৃদ্ধিও ভোক্তাদের পাম অয়েলের বাজারমুখী করে তুলেছে। কার্গো সার্ভেয়ার ইন্টারটেক টেস্টিং সার্ভিসেস গতকাল জানিয়েছে, ডিসেম্বরের প্রথমার্ধে মালয়েশিয়ার পাম অয়েল রফতানি নভেম্বরের তুলনায় ১৩ দশমিক ৬ শতাংশ কমেছে।

 সময় মোট ৫ লাখ ৯১ হাজার ৪৯০ রফতানি করেছে দেশটি। রয়টার্সের কৌশলগত বিশ্লেষক ওয়াং টাও বলেছেন, ‘পাম অয়েলের দাম টনপ্রতি ৩ হাজার ৭৭৫ থেকে ৩ হাজার ৭৮১ রিঙ্গিতের মধ্যে ওঠানামা করতে পারে।’

অন্যদিকে ইন্টারন্যাশনাল এনার্জি এজেন্সি (আইইএ) ২০২৪ সালে জ্বালানি তেলের চাহিদা প্রত্যাশার চেয়েও বেশি বাড়বে বলে জানিয়েছে। আইইএর এমন প্রতিবেদনে ঊর্ধ্বমুখী হয়ে উঠেছে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দর। বাজার প্রবণতা অনুযায়ী অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম বাড়তে শুরু করলে বায়োডিজেলের চাহিদা বাড়ে। আর বায়োডিজেলের কাঁচামাল হিসেবে পাম অয়েলের বিক্রি বাড়ায় উদ্ভিজ্জ তেলটির দামও বাড়তে শুরু করে।

আরও পড়ুন আপনার মতামত লিখুন

© Copyright -Bangla Runner 2024 | All Right Reserved |

Design & Developed By Web Master Shawon